e-SIM Card: e-sim card কী? SIM কার্ড ছাড়া কি Calling এবং ইন্টারনেট use করা সম্ভব!

দিন পরিবর্তনের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে উন্নত হচ্ছে টেকনোলজি। কয়েক মাস অন্তর অন্তর আসছে নতুন নতুন স্মার্টফোন, গ্যাজেট, Device প্রতিনিয়ত। এবং এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে কিছু অত্যাধুনিক জনপ্রিয় ফিচার্স। তেমনি একটি জনপ্রিয়, প্রয়োজনীয় টেকনোলজি হলো e-SIM

আমরা সকলে মোবাইল ফোন ব্যবহার করি Call এবং ইন্টারনেট use করার জন্য, কিন্তু আজ আমি যদি আপনাকে বলি আপনার ফোন থেকে SIM card বের করে Call বা করুন তাহলে আপনি আমাকে পাগল ভাবেন। পাগল ভাবাটি স্বাভাবিক, কেননা ফোন থেকে SIM card বের করে কখনো কি Call বা ইন্টারনেটে ব্যবহার করা যায় যদি মোবাইলটি যদি না Wifi Hotspot দ্বারা connect থাকে। কিন্তু আজ আমি আপনাকে এমন একটি নতুন টেকনোলজি সঙ্গে পরিচয় করাবো যার সাহায্যে আপনি SIM card ছাড়া Calling বা ইন্টারনেট use করতে পারবেন এবং যখন খুশি SIM Operator চেঞ্জ করতে পারবেন। এই Advance টেকনোলজির নাম হলো e-SIM

*** কী কী ভাবে অনলাইন থেকে বাড়িতে বসে ইনকাম করা যায়

আজকের এই আর্টিকেল e-SIM সমন্ধে বিস্তারিত জানবো তাই আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত পড়ুন তাহলে e-SIM সম্পর্কে একটি সঠিক knowledge পাবেন।

  • e-SIM কী (what is e-SIM):

e-SIM এর সম্পর্ণ নাম হলো Embedded SIM . e-SIM হলো এমন এক টেকনোলজি যার মাধ্যমে আপনি Physical SIM কার্ড ছাড়া telecom operator এর নেটওয়ার্ক use করতে পারবেন। এবং আপনি আপনার ইচ্ছা মতো যেকোনো সময় নেটওয়ার্ক অপারেটর চেঞ্জ করতে পারবেন। e-SIM হলো মোবাইলের মধ্যে থাকা ইন্টিগ্রেটেড হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যার সিস্টেম যা কোনো মোবাইলে নেটওয়ার্ক অপারেটরের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করতে পারে কাজ করে।

e-SIM এর সূত্রপাত হওয়ার প্রধান উদ্দেশ্য হলো-

1. যেকোনো সময় যেকোনো জায়গায় মোবাইল ফোন user যেনো ভালো ভাবে নেটওয়ার্ক (ইন্টারনেট) injoy করতে পারে। যেমন ধরুন, আপনি jio নেটওয়ার্ক use করছেন হঠাৎ করে আপনার এলাকায় Jio এর নেটওয়ার্ক খারাপ হয়ে গেল তখন আপনি খুব সহজে কোথাও না গিয়ে আপনার নেটওয়ার্ক অপারেটর চেঞ্জ করে অন্য অপারেটরে (Airtel, Vi) যেতে পারেন।

2. মোবাইলের স্পেস কমানো, আমরা সকলে জানি Physical SIM কার্ড ব্যবহার করার জন্য আমাদের ফোনে SIM card tool এর জন্য জায়গা রাখা হয়ে থাকে কিন্তু যদি e-SIM চালু করা হয় তাহলে আমাদের Extra SIM tool এর জন্য জায়গা (space) রাখার দরকার হবে না। ফলে ফোনকে আরও হালকা করানো যাবে।

  • কোন কোন ফোন e-SIM সাপোর্ট করে:

সর্ব প্রথম Apple কোম্পানি e-SIM টেকনোলোজি এর সূচনা করে তাদের Iphone Xs ফোনের মাধ্যমে। এটি সেই ফোন যেখানে e-SIM টেকনোলজিকে প্রথম বার use করা হয়েছে। Iphone Xs পরবর্তীতে যতগুলি ফোন এখনো পর্যন্ত মার্কেট রয়েছে সবেই e-SIM টেকনোলজি ব্যবহার করা হচ্ছে। ফোনের পাশাপাশি iPad, smartwatch এ e-SIM সাপোর্ট করছে।

Apple কোম্পানির পাশাপাশি Samsung, Google ও motorola e-SIM সাপোর্টেড ফোন মার্কেটে লঞ্চ করছে।

কিছু e-SIM সাপোর্ট স্মার্টফোনের নাম –

Apple Company; iPhone 12 Pro Max, iPhone 12 Pro, iPhone 12, iPhone 12 Mini, iPhone SE, iPhone 11 Pro Max, iPhone 11 Pro, iPhone 11, iPhone XS Max, iPhone XS, iPhone XR, iPhone 13 mini, iPhone 13 , iPhone 13 Pro, iPhone 13 Pro Max,

Google; Pixel 4A, Pixel 3XL, Pixel 3A XL, Pixel 3A, Pixel 3

Samsung; Galaxy S21 Ultra 5G, Galaxy S21+ 5G, Galaxy S21 5G, Galaxy Z Fold 2, Galaxy Note 20 Ultra 5G, Galaxy Note 20, Galaxy S20 Ultra, Galaxy S20+, Galaxy S20, Galaxy Z Flip, Galaxy Fold, Galaxy Z Fold3 5G, Galaxy Z Flip3 5G

Motorola; Next Gen Razr 5G, Razr

  • e-SIM activation:

বিভিন্ন টেলিকম অপারেটরের e-SIM এক্টিভেশন প্রক্রিয়া ভিন্ন রকমের ভাবে হয়ে থাকে।

Jio e-SIM; Jio e-SIM connection নেওয়ার জন্য বা physical SIM কে e-SIM এ convart করার জন্য আপনাকে আপনার Identity proof নিয়ে নিকটবর্তী Jio store যেতে হবে, তাহলে e-SIM connection পেয়ে যাবেন।

Airtel e-SIM; airtel এর e-SIM এক্টিভেশন আপনি নিজে বাড়িতে বসে করতে পারবেন, এর জন্য আপনাকে airtel স্টোরে যেতে হবে না।শুধু SMS এর মাধ্যমে Physical SIM কে e-SIM এ convart করতে পারবেন। airtel physical SIM-কে e-SIM কনভার্ট করতে এই লিখার উপরে click করুন

Vi e-SIM; airtel এর মতো আপনি নিজেই নিজের Physical SIM কে e-SIM এ convart করতে পারবেন। শুধু মাত্র কোম্পানিকে SMS পাঠিয়ে। Vi physical SIM কে e-SIM এ convart করতে চাইলে এই লিখার উপরে click করে বিস্তারিত জানুন

আমার শেষকথা; আশা করছি আজকের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আপনাকে e-SIM সমন্ধে কিছুটা হলেও ধারণা দিতে পেরেছি। যদি আপনার এই আর্টিকেলটি ভালো লাগে তাহলে আপনার প্রিয়জনদের সঙ্গে share করবেন যাতে তারা e-SIM সমন্ধে জানতে পারে। যদি এই বিষয়ে কোনো রকম মতামত থাকে তাহলে অবশ্যই Comment করে জানাবেন, ধন্যবাদ।

1 thought on “e-SIM Card: e-sim card কী? SIM কার্ড ছাড়া কি Calling এবং ইন্টারনেট use করা সম্ভব!”

Leave a Comment